রাসূল (সা.) ছিলেন একজন আদর্শ উদ্যোক্তা | islam.bdview24.com : The Religion of Islam

রাসূল (সা.) ছিলেন একজন আদর্শ উদ্যোক্তা


আমাদের নবী মুহাম্মদ (সা.) হিসেবে একজন আদর্শ নবী। তিনি মানুষকে নৈতিকতা শিখাতেন। 

সেই সাথে তিনি শিখাতেন কীভাবে লেনদেন করতে হয়, ব্যবসা করতে হয় এবং উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ করতে হয়। 

রাসূল (সা.) যা করতেন এবং করতে বলতেন- একজন উম্মতে মুহাম্মাদী হিসেব তার অনুসরণ করার নিদের্শনার কথা পবিত্র কুরআনেই স্পষ্টভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।

রাসূল (সা.) ছিলেন একজন আদর্শ ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা। একজন আদর্শ ব্যবসায়ীর মাঝে যে সব গুণাবলী থাকা অবশ্যক, তার মাঝে সব গুণাবলী বিদ্যমান ছিল। তিনি নিজে যেভাবে আদর্শ উদ্যোক্ত হিসেবে সমাজে ব্যবসা পরিচালনা করেছেন একই নিয়ম ও পদ্ধতি মেনে উম্মতে মুহাম্মাদীকে ব্যবসা পরিচালনা দিক-নিদের্শনা প্রদান করেছেন। 

নিন্মে রাসূল (সা.) থেকে বর্ণিত আদর্শ ব্যবসায়ী ও আদর্শ উদ্যোক্তার আবশ্যক গুণাবলী বিষয়ক দিক-নিদের্শনাবলী তুলে ধরা হলো- আমাদের নবী (সা.) বিভিন্নভাবে ব্যবসা করার পথ ও পদ্ধতি শিক্ষা দিয়েছেন। 

এই মর্মে তিনি বলেছেন, ‘যখন দুইজনের মাঝে কোনো বিক্রি সংগঠিত হবে- তখন সেখানে কোনো প্রকার প্রতারণা থাকবে না বা থাকা উচিত না।’ (বুখারি)

তিনি আরো বলেছেন, ‘ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয় পক্ষের পারস্পরিক সম্মতির মাধ্যমে একটি বিক্রয় কাজ সম্পূর্ণ হয়।’ (বুখারি) তিনি আরও বলেছেন, ‘যদি মানুষ ওজন ও পরিমাপ করার সময় ঠকায়, তাহলে তাদের রিজিককে সঙ্কীর্ণ করে দেওয়া হয়।’ (আল-মুওয়াত্তা)

নবী মুহাম্মাদ (সা.) বলেছেন, ‘ইসলাম একটি পণ্যকে বেশি দিন গুদামজাত করে বাজারে সঙ্কট তৈরি করাকে নিষিদ্ধ করেছে।’ এছাড়া ইসলাম মদ বিক্রিকেও হারাম ঘোষণা করেছে। 

আমাদের নবী মুহাম্মাদ (সা.) বাজারের চাহিদা নিয়ন্ত্রণের বিষয়টিকে কঠোরভাবে সুব্যবস্থাপনা করেছেন। 

দালালের মাধ্যমে কিংবা বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে পণ্যের দাম বৃদ্ধি করাকে নিষিদ্ধ করেছেন। বিক্রের ক্ষেত্রে বেশি দরদাম কিংবা শর্তযুক্ত করা অথবা পণ্যের দোষ গোপন রেখে পণ্য বিক্রি করার মতো বিষয়গুলো থেকে তিনি সবাইকে বেঁচে থাকার নিদের্শ দিয়েছেন। 

একজন উদ্যোক্তার মূল পরিচয় হলো মূল্যবোধ। রাসূল (সা.) ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তাদের মূল্যবোধের ব্যাপারে যুগপযোগী দিক-নিদের্শনা প্রদান করেছেন। নবী মুহাম্মদ (সা.) বিশ্বাস করতেন- উদ্যোক্তা, বিনিয়োগকারী এবং ব্যবসায়ীদের ইমানের আলোয় অনুপ্রাণিত থাকা উচিত। 

তিনি ব্যবসার ক্ষেত্রে নম্রতা, ভালো আচরণ এবং সৌজন্যবোধের মতো বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিতেন। তিনি বলতেন এবং পালন করতেন যে, মূল্যবোধ ঠিক রেখে ব্যবস্থাপনাগত দক্ষতা এবং যথাযথ পরিকল্পনার সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে একজন ব্যবসায়ী লাভের উপর সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

সূত্র: মুসলিমইনকর্পোরেশন
Share on Google Plus

About news zone

প্রকাশিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।
    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment